1. admin@bbcnewsbangla.com : admin :
  2. Sadiafrin011210@gmail.com : সাদিয়া আফরিন : সাদিয়া আফরিন
  3. infomvaly@gmail.com : সবুজ দাস : সবুজ দাস
  4. engr.mahadiviruss@gmail.com : Mahadi Hasan : Mahadi Hasan
শুক্রবার, ২০ নভেম্বর ২০২০, ১১:৪১ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
***পরীক্ষামূলক সম্প্রচার*** বাংলাদেশের সকল যায়গা থেকেই শিক্ষানবিশ সাংবাদিক নেওয়া হচ্ছে, যারা আগ্রহী তারা ছবি, ভোটার আইডি কার্ড, মোবাইল নাম্বার সহ বায়োডাটা পাঠান infomvaly@gmail.com
প্রধান খবর
করোনা ভাইরাস সনাক্তকরণ এর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কিট প্রস্তুত। | BBC NEWS BANGLA এবার নুসরাত ফারিয়ার অর্ধনগ্ন ছবি ফাঁস, ভক্তদের তোলপাড় | BBC NEWS BANGLA অভিনেত্রীকে অশ্লীলভাবে ধর্ষণের হুমকি, অতঃপর… | BBC NEWS BANGLA দ্বিতীয় বিয়ে করেও সাবেক স্বামীকে সময় দিচ্ছেন অভিনেত্রী! | BBC NEWS BANGLA রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘ প্রস্তাবের পক্ষে ১৩২ দেশ, ভোট দেয়নি ভারত, বিপক্ষে চীন | BBC NEWS BANGLA সাকিবকে হত্যার হুমকিদাতা গ্রেফতার | BBC NEWS BANGLA অটোপাস নয়, পরীক্ষা দিতে আগ্রহী শিক্ষার্থীরা | BBC NEWS BANGLA একি হাল অপু-নিরবের! | BBC NEWS BANGLA মানি লন্ডারিং মামলায় গ্রেফতার দেখানো হলো সম্রাটকে | BBC NEWS BANGLA এএসপি আনিসুল করিমের মৃত্যুর ঘটনায় মামলা | BBC NEWS BANGLA রায়হান হত্যা মামলায় এসআই আকবর ৭ দিনের রিমান্ডে | BBC NEWS BANGLA অবৈধ হ্যান্ডসেট বন্ধে ৩০ কোটি টাকায় প্রযুক্তি কিনছে বিটিআরসি | BBC NEWS BANGLA থাইল্যান্ডে সেলিম প্রধানের ‘৭ কোম্পানি’ | BBC NEWS BANGLA পুরুষরা বয়স ধরে রাখতে যা করবেন | BBC NEWS BANGLA উৎসবের মরসুমে সঙ্গীর মনে আলো জ্বালতে যা যা করতেই হবে | BBC NEWS BANGLA আবারও বাড়ছে স্বর্ণের দাম! | BBC NEWS BANGLA জুয়া খেলায় বিপাকে তামান্না! | BBC NEWS BANGLA কমলা হ্যারিসকে নিয়ে ১১ বছর আগে মল্লিকা যা বলেছিলেন | BBC NEWS BANGLA আওয়ামী লীগ জনগণের মন জয় করেই ক্ষমতায় এসেছে : কাদের | BBC NEWS BANGLA রায়হান হত্যা : এসআই আকবর গ্রেফতার | BBC NEWS BANGLA রোহিঙ্গা দম্পতির বাসা থেকে কোটি টাকা উদ্ধার | BBC NEWS BANGLA

আমরা স্বার্থপরের মতো নিজেকেই ভালোবাসি

  • রবিবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২০
  • ৪৯ বার পড়া হয়েছে

গুলশান আরা চম্পা। ছবি: ফেসবুক থেকে

গাছে পানি দিচ্ছিলাম। ভাবছিলাম, অনেকটা সময় তো ঘরে ছিলাম। এভাবে আর কত দিন যে কাটাতে হবে! পরিস্থিতি সামনে কী আকার ধারণ করবে, ভেবেই কূলকিনারা পাচ্ছি না।

এত দিন করোনা নিয়ে সবকিছু ভুলে ছিলাম। যেদিন থেকে লকডাউন শুরু হলো, সেদিন থেকে বাড়ি পরিষ্কার করা শুরু করলাম। পুরো বাসা একদম ঝকঝকে–তকতকে করে ফেলেছি। করোনাকে ভুলে থাকতে নিজের কাজে ব্যস্ত রেখেছি। ভয়াবহ পরিস্থিতি মনে করতে চাইনি। ঘরবাড়িও এত দিনে পরিষ্কার–পরিচ্ছন্ন করে ফেলেছি। বাসা গোছানোর সব কাজও শেষ। কিছুদিন ধরে করোনা মনের মধ্যে উঁকিঝুঁকি মারছে। ভাবার সময় পাচ্ছি।

চারদিকের খবর শুনে মন খারাপ হয়। ভাবি, এটার শেষ কোথায়। যদি বুঝতাম ৩-৬ মাস এভাবে থাকতে হবে, তাহলেও আশ্বস্ত হতাম। এটাও ভাবি, আমি হয়তো অনেক ভালো আছি। আমরা ভালো আছি। কিন্তু বেশির ভাগ মানুষ কি ভালো আছে? দিন আনে দিন খাওয়া মানুষের কথা ভেবে কষ্টটা পাই বেশি। অনেকেরই আয় বন্ধ হয়ে গেছে, ভাবলেই মাথাটা নষ্ট হয়ে যায়।

করোনা নিয়ে অনেকে অনেক কথাই বলছেন। বলছেন ভাইরাসের যুদ্ধ। যেটাই হোক, যেভাবেই হোক—প্রকৃতি তার ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছে। আমরা মানুষেরা প্রকৃতিকে নষ্ট করে ফেলেছি। সারা পৃথিবীতে দূষণ করেছি—দায়ী আমরা মানুষেরা। আমরা স্বার্থপরের মতো নিজেকেই ভালোবাসি। ফুল, পাখি, গাছপালা, প্রকৃতি, পশুসহ অন্যদের কথা ভাবতে চাই না। শুধু মানুষের কারণে অনেক প্রজাতি পৃথিবী থেকে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। বায়ুবাহিত অনেক রোগ বাড়ছে।

অথচ পৃথিবী লকডাউন পরিস্থিতিতে চলে যাওয়ার পর বাতাসে কার্বন নিঃসরণ কমে গেছে। পশুপাখি ঘুরে বেড়াচ্ছে। প্রকৃতি হাসছে। ব্যক্তিগতভাবে আমার মনে হচ্ছে, এত বেশি পাপ করেছি, তাই পৃথিবী নিজের মতো রিসেট করে নিচ্ছে। পৃথিবীটা ভার হয়ে গেছে। আমরা গভীরভাবে তা ভাবিনি।

প্রভাব, প্রতিপত্তি, দাপট এগুলো আসলে কিছু না—করোনা তা ভাবতে শেখাচ্ছে। এটা চোখে আঙুল দিয়ে শেখাচ্ছে, মানুষের যত প্রয়োজন বাড়ছে, চাহিদা বাড়ছে—মানুষ তত বেশি অসচেতন হচ্ছে, সবকিছুর সঙ্গে আপস করছে। করোনায় জীবনকে যেভাবে দেখছি, অন্য সময় এভাবে কখনো দেখিনি, ভাবিনি, হয়তো ভাবতামও না। শুধু জীবন না, জীবনে জড়িয়ে অনেক ক্ষুদ্র বিষয়কেও বড় করে দেখার সুযোগ তৈরি হয়েছে। বাঁচার জন্য আমরা সবাই দৌড়াতাম, সেই দৌড় এখন অনেকটাই থেমে গেছে।

একটা কথা বলতে চাই, এই ভাইরাস থেকে বাঁচতে নিজেদেরই নিজেদের সহযোগিতা করতে হবে। করোনা আক্রান্ত হলে কেউ কাউকে বাঁচাতে পারবে না। আমাদের নিজেদেরই সচেতনতা বাড়াতে হবে। নতুন রোগী যাতে না বাড়ে, এদিকে খেয়াল রাখতে হবে। বেশি বেশি পরীক্ষা করতে হবে। কোথায়, কীভাবে করোনা ছড়াচ্ছে, সেটাও চিহ্নিত করতে হবে। ওসব এলাকায় সচেতনতার জন্য বেশি বেশি প্রচারণা চালাতে হবে।

এই সংকটের সময়ে যার যতটা সামর্থ্য আছে, সেভাবে সহযোগিতা করতে হবে। সরকার এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যেভাবে দিকনির্দেশনা দিয়েছে, সেটা সবাইকে মেনে চলতে হবে। ঘরে থেকে এই ভাইরাস থেকে নিজেকে দূরে রাখো। এর বিকল্প তো আমরা কিছুই জানি না। সচেতন মানুষ হিসেবে যেটা বুঝতে পারছি, নিয়ম যাঁরা মানছেন, তাঁরা সমস্যায় পড়ছেন না। ভাবতে পারিনি, জীবিত অবস্থায় এমন কিছু দেখব। আরও ভাবতে ভয় লাগছে, আমাদের পরের প্রজন্মের জন্য কী অপেক্ষা করছে। আমরা তো পৃথিবীতে অনেক ভালোভাবে ছিলাম। কল্পনাও করতে পারিনি এমন দিন দেখতে হবে! এটা যুদ্ধের চেয়ে কোনো অংশে কম না। তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ তো বটেই। মানুষের সঙ্গে এটা অদৃশ্য শক্তির যুদ্ধ, যা খালি চোখে কেউ দেখতে পারছি না। মানবিকতার শিক্ষাও দিয়ে যাচ্ছে।

সুত্র-প্রথম আলো

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর

Categories

© BBCNewsbangla All rights reserved © 2020. প্রবেশকরুন
Theme Customized By BreakingNews