1. admin@bbcnewsbangla.com : admin :
  2. Sadiafrin011210@gmail.com : সাদিয়া আফরিন : সাদিয়া আফরিন
  3. infomvaly@gmail.com : সবুজ দাস : সবুজ দাস
  4. engr.mahadiviruss@gmail.com : Mahadi Hasan : Mahadi Hasan
শনিবার, ২১ নভেম্বর ২০২০, ০১:২৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
***পরীক্ষামূলক সম্প্রচার*** বাংলাদেশের সকল যায়গা থেকেই শিক্ষানবিশ সাংবাদিক নেওয়া হচ্ছে, যারা আগ্রহী তারা ছবি, ভোটার আইডি কার্ড, মোবাইল নাম্বার সহ বায়োডাটা পাঠান infomvaly@gmail.com
প্রধান খবর
করোনা ভাইরাস সনাক্তকরণ এর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কিট প্রস্তুত। | BBC NEWS BANGLA এবার নুসরাত ফারিয়ার অর্ধনগ্ন ছবি ফাঁস, ভক্তদের তোলপাড় | BBC NEWS BANGLA অভিনেত্রীকে অশ্লীলভাবে ধর্ষণের হুমকি, অতঃপর… | BBC NEWS BANGLA দ্বিতীয় বিয়ে করেও সাবেক স্বামীকে সময় দিচ্ছেন অভিনেত্রী! | BBC NEWS BANGLA রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘ প্রস্তাবের পক্ষে ১৩২ দেশ, ভোট দেয়নি ভারত, বিপক্ষে চীন | BBC NEWS BANGLA সাকিবকে হত্যার হুমকিদাতা গ্রেফতার | BBC NEWS BANGLA অটোপাস নয়, পরীক্ষা দিতে আগ্রহী শিক্ষার্থীরা | BBC NEWS BANGLA একি হাল অপু-নিরবের! | BBC NEWS BANGLA মানি লন্ডারিং মামলায় গ্রেফতার দেখানো হলো সম্রাটকে | BBC NEWS BANGLA এএসপি আনিসুল করিমের মৃত্যুর ঘটনায় মামলা | BBC NEWS BANGLA রায়হান হত্যা মামলায় এসআই আকবর ৭ দিনের রিমান্ডে | BBC NEWS BANGLA অবৈধ হ্যান্ডসেট বন্ধে ৩০ কোটি টাকায় প্রযুক্তি কিনছে বিটিআরসি | BBC NEWS BANGLA থাইল্যান্ডে সেলিম প্রধানের ‘৭ কোম্পানি’ | BBC NEWS BANGLA পুরুষরা বয়স ধরে রাখতে যা করবেন | BBC NEWS BANGLA উৎসবের মরসুমে সঙ্গীর মনে আলো জ্বালতে যা যা করতেই হবে | BBC NEWS BANGLA আবারও বাড়ছে স্বর্ণের দাম! | BBC NEWS BANGLA জুয়া খেলায় বিপাকে তামান্না! | BBC NEWS BANGLA কমলা হ্যারিসকে নিয়ে ১১ বছর আগে মল্লিকা যা বলেছিলেন | BBC NEWS BANGLA আওয়ামী লীগ জনগণের মন জয় করেই ক্ষমতায় এসেছে : কাদের | BBC NEWS BANGLA রায়হান হত্যা : এসআই আকবর গ্রেফতার | BBC NEWS BANGLA রোহিঙ্গা দম্পতির বাসা থেকে কোটি টাকা উদ্ধার | BBC NEWS BANGLA

সেনাবাহিনীতে হাই অ্যালার্ট, চীন সীমান্তে যুদ্ধের প্রস্তুতি ভারতীয় বিমানবাহিনীর | BBC NEWS BANGLA

  • বৃহস্পতিবার, ১৮ জুন, ২০২০
  • ৪৩ বার পড়া হয়েছে

নিউজ ডেস্ক: ভারতীয় সেনাবাহিনীতে হাই অ্যালার্ট জারি করেছে সরকার। সীমান্তের কাছে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে বিমানবাহিনী। তারই মধ্যে আজ গ্রাউন্ড জিরোতে দ্বিতীয় ফ্ল্যাগ মিটিং।

বিমানবাহিনী, নৌবাহিনী ও স্থলবাহিনীকে সবরকম পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত থাকতে বললো ভারতের নরেন্দ্র মোদির সরকার। ভারতীয় সেনা সূত্রে জানা গেছে, ভারত ও চীনের প্রতিটি সীমান্তেই অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। নিয়ন্ত্রণরেখার খুব কাছে আরো বেশি সেনা নিয়োগ করা হয়েছে। সকলকেই অতি সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

শুধু তাই নয়, সূত্র জানাচ্ছে, বিমান বাহিনীও প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সীমান্তের কাছাকাছি নিয়ে গিয়েছে। যাতে যেকোনো প্রয়োজনে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া যায়। অন্য দিকে ভারতের নৌসেনা প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে টহল বাড়িয়েছে। তারাও যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে।

বিজ্ঞাপন- এবিসি ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড।

সোমবার রাতে লাদাখের ঘটনার পরে ভারত বা চীন কোনো দেশই সরাসরি যুদ্ধের কথা বলেনি। কিন্তু দুই দেশের বিবৃতিতেই উত্তেজনা পারদ যথেষ্ট চড়া। তারই মধ্যে বুধবার লাদাখে ভারত ও চীন সেনার ফ্ল্যাগ বৈঠক ভণ্ডুল হয়ে গিয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার ফের মেজর জেনারেল স্তরের বৈঠক হওয়ার কথা পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৪ তে। এখানেই সোমবার রাতে প্রায় আট ঘণ্টা ধরে ভারত ও চীনের সৈন্য সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে। যার জেরে ভারতের অন্তত ২০ জন সেনা নিহত হয়েছেন। তার মধ্যে একজন অফিসার। চীনেরও বেশ কয়েক জন সেনা নিহত হয়েছেন বলে সূত্রের খবর। যদিও সরকারি ভাবে চীন এখনো কিছু জানায়নি।

সোমবার রাতে ঘটনা ঘটার পরে মঙ্গলবারই ঘটনাস্থলে বৈঠকে বসেছিলেন ভারত ও চীনের অফিসাররা। দুই পক্ষই একে অপরের দিকে আঙুল তোলে। স্থির হয়, বৈঠকে মূলত দু’টি বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। এর আগে গত শনিবার কোর কম্যান্ডার স্তরের বৈঠকেও এই বিষয়গুলো নিয়েই কথা হয়েছিল। আলোচনার প্রথম বিষয় উত্তেজনা প্রশমন করা। এবং দুই স্থিতাবস্থা রক্ষা করা। স্থিতাবস্থা রক্ষা করার অর্থ, আসল নিয়ন্ত্রণ রেখা মেনে দুই পক্ষই সরে যাবে। অর্থাৎ, বর্তমান অবস্থা থেকে দুই পক্ষকেই পিছু হঠতে হবে। বুধবারের বৈঠকে এ বিষয়ে ঐক্যমত্যে পৌঁছতে পারেনি কোনো পক্ষই। বরং উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়েছে। বৃহস্পতিবার ফের বৈঠকে একই আলোচনা হওয়ার কথা।

সামরিক বিশেষজ্ঞদের অনেকেই বলছেন, এতজন সেনার প্রাণহানি হওয়ার পরে এই মুহূর্তে সীমান্তে উত্তেজনা কমা কঠিন। দুই পক্ষের সেনাই প্রতিশোধ নেয়ার জন্য তৈরি হয়ে আছে। ভারতের সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল শংকর রায়চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, ”কূটনৈতিক আলোচনার রাস্তা খোলা রাখতেই হবে। কিন্তু সেনার মনোবলের কথাও ভাবতে হবে। ভারতকে বুঝিয়ে দিতে হবে, আঘাত করা হলে তারা পাল্টা আঘাত ফিরিয়ে দিতে পারে। ২০ জন সেনার প্রাণহানি কম কথা নয়। ভারতীয় সেনা অবশ্যই এর যোগ্য জবাব দেবে।”

সোমবারের ঘটনার পরে বুধবার দুপুর পর্যন্ত কার্যত চুপ ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু বুধবার বেলার দিকে তিনি যে বিবৃতি দিয়েছেন, তাতে সব দিকে ভারসাম্য রাখা হয়েছে। সেনার মৃত্যু ভারত ভুলবে না এবং তার যোগ্য জবাব দেয়া হবে- এ কথা যেমন তিনি বলেছেন, আবার এও জানিয়েছেন যে, ভারত শান্তিকামী রাষ্ট্র। আলোচনায় বিশ্বাস করে। প্রধানমন্ত্রীর বিবৃতি শুনে অনেকেই মনে করছিলেন উত্তাপ খানিকটা হলেও কমানোর চেষ্টা হচ্ছে। কিন্তু তারপরেই ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শংকর টেলিফোনে কথা বলেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই-র সঙ্গে। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দাবি, জয়শংকর অত্যন্ত কড়া ভাষায় কথা বলেছেন। বলা হয়েছে, এই ঘটনার জন্য চীনই দায়ী। তারা যদি দ্রুত গোটা ঘটনার তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেয়, তাহলে তার ফল ভুগতে হবে। চীনকে জয়শংকর বলেছেন, সোমবার রাতের ঘটনা ইচ্ছাকৃত ভাবে চীন ঘটিয়েছিল। তারা আগে থেকে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিল।

যে ভাষায় বুধবার দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কথা হয়েছে, তা এক কথা নজিরবিহীন। বস্তুত ১৯৯০ এর দশকে শেষবার দুই দেশের মধ্যে এত উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়েছিল। ২০১৭ সালে ডোকলামের ঘটনার পরেও দুই দেশ এত কড়া শব্দ ব্যবহার করেনি।

বিজ্ঞাপন- এবিসি ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড।

চীনও বিবৃতি দিয়ে গোটা ঘটনার জন্য ভারতকে দোষী করেছে। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সে কথা ভারতকে জানিয়েছেন। বলা হয়েছে, সীমান্তে ভারতীয় সেনাকে নিয়ন্ত্রিত রাখার দায়িত্ব নিতে হবে সরকারকে। চীনের সার্বভৌমত্বে আঘাত লাগলে সব রকম ব্যবস্থা নেয়ার জন্য তারা তৈরি। প্রকারান্তরে চীনের দাবি, নিয়ন্ত্রণরেখা পার করে ভারতের সেনাবাহিনী চীনের জমি দখল করে রেখেছে। বস্তুত এ কারণেই সীমান্তে দুই দেশের মেজর জেনারেলদের বৈঠক বার বার ভণ্ডুল হয়ে যাচ্ছে। কারণ দুই দেশেরই অভিযোগ, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা মানছে না দুই দেশের সেনা।

উত্তাপ যে কাটেনি তা স্পষ্ট। তবে বুধবার পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে কূটনৈতিক আলোচনার দরজাও খোলা রাখা হয়েছে। ভারত এবং চীন কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমেই যাতে সমাধানসূত্রে পৌঁছয়, তার জন্য পৃথিবীর বহু দেশই আর্জি জানিয়েছে। জাতিসঙ্ঘও বিবৃতি দিয়ে আলোচনার কথা বলেছে। বুধবার জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাসও দুই দেশকে আলোচনার টেবিলে বসার আহ্বান জানিয়েছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আলোচনার রাস্তা খোলা থাকবে। তবে এখনই উত্তাপ কমবে না।

সূত্র : ডয়চে ভেলে

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর

Categories

© BBCNewsbangla All rights reserved © 2020. প্রবেশকরুন
Theme Customized By BreakingNews